HSC 2021 Business Organization & Management Assignment Answer 7th Week – 1st & 2nd Paper

HSC 2021 Business Organization & Management Assignment Answer of 7th Week for 1st and 2nd Paper PDF Download has been given at our website bestbdjob.com. In this post, we will share with you the assignment of the participants in the HSC exam of 2021 with its solution as well. Yesterday, The assignment has given by the Directorate of Secondary and Higher Education www.dshe.gov.bd. HSC 7th Week Business Organization & Management Assignment Answer for 1st and 2nd Paper 2021, Business Organization & Management Assignment Answer 7th Paper Answer Download PDF 2021. এইচএসসি ২০২১ ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা এ্যাসাইনমেন্ট ও উত্তর ৭ম সপ্তাহ প্রকাশ।

HSC 2021 Business Organization & Management Assignment Answer 7th Week – 7th Paper

HSC Business Organization & Management is a compulsory subject for of HSC batch Business studies group 2021. Only business group students need to complete the assignment activity for this subject. They need to complete 1st and 2nd papers assignment according to their short syllabus of HSC exam 2021.

HSC 2021 Business Organization & Management Assignment Assignment Question 2nd Paper in 7th Week

Every Business group students need to download their HSC 2021 Business Organization & Management assignment and they need to complete the solution as well. Let’s check the assignment task below:

HSC 2021 7th Week Assignment Answer 2021 – All Subjects

Business Studies Group More Assignment Subjects Available Here:

Assignment 05 for 7th Week

HSC Assignment 2021 7th Week All Subjects

7th Week HSC 2021 Business Organization & Management Assignment Assignment Answer 2nd Paper

The answer will publish very soon Inshallah. Just stay connected with us to get further update. So students will find the HSC exam all the Business Organization & Management question answers from our website after making the solution by our specialists.

এইচএসসি এসাইনমেন্ট সমাধান/উত্তর ২০২১ সালের ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা (৭ম সপ্তাহ) এসাইনমেন্ট -৫

বিশ্বব্যাপী ক্ষুদ্রায়তন একমালিকানা ব্যবসায়ই এখনও সবচেয়ে জনপ্রিয় উক্তিটির যথার্থতা নিরুপণঃ

ক নং প্রশ্নের উত্তর

একমালিকানা ব্যবসায়ের ধারণা : 

সাধারণভাবে একজন ব্যক্তি মালিকানায় প্রতিষ্ঠিত, পরিচালিত ও নিয়ন্ত্রিত ব্যবসায়কে একমালিকানা ব্যবসায় বলে।

অন্যভাবে বলা যায়, মুনাফা অর্জনের লক্ষ্য নিয়ে যখন কোনাে ব্যক্তি নিজ দায়িত্বে মূলধন যােগাড় করে কোনাে ব্যবসা গঠন ও পরিচালনা করে এবং উক্ত ব্যবসায়ে অর্জিত সকল লাভ নিজে ভােগ করে বা ক্ষতি হলে নিজেই তা বহন করে, তখন তাকে একমালিকানা ব্যবসায় বলে।

উদাহরণঃ ধরা যাক , মামুন একজন মুদি দোকানদার । তিনি তার দোকান পরিচালনা ও নিয়ন্ত্রণ নিজেই করে থাকেন। তার ব্যবসায় অন্য কোন অংশীদার নেই । তার ব্যবসায়ের মুনাফার সবটুকুই তিনি একা ভােগ করতে পারেন। আবার লােকসান হলেও তার একাই তা বহন করতে হয় । এ ধরনের ব্যবসায়ী হচ্ছে একমালিকানা ব্যবসায়।

খ নং প্রশ্নের উত্তর

নিম্নে একমালিকানা ব্যবসায়ের বৈশিষ্ট্যগুলাে চিহ্নিত করা হলাে –

১। একমালিকানা ব্যবসায়ের মালিক সব সময় একজন ব্যক্তি যিন নিজ উদ্যোগে পুঁজির সংস্থান করেন , ব্যবসায় পরিচালনা করেন ও ঝুঁকি বহন করেন। 

২। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই একমালিকানা ব্যবসায় ক্ষুদ্র আকারের হয়ে থাকে । মূলধনের স্বল্পতা ও একজন ব্যক্তির মালিকানার জন্য এর আয়তন সাধারণত ছােট হয়ে থাকে।

৩। একমালিকানা ব্যবসায়ের সকল ঝুঁকি মালিককে এককভাবে বহন করতে হয়। 

৪। আইনের চোখে একমালিকানা ব্যবসায়ের পৃথক কোনাে সত্তা নেই। মালিক ও ব্যবসায় অভিন্ন। এ জাতীয় ব্যবসায়ের সম্পূর্ণ দায় – দায়িত্ব মালিকের । ফলে তার দায় অসীম। প্রয়ােজনে ব্যক্তিগত সম্পত্তি বিক্রয় করে ব্যবসায়ের দায় পরিশােধ করতে হয়।

৫। পুরাে ব্যবসায়ের একক মালিকানার জন্য লাভের সবটা মালিক একা ভােগ করেন । আবার লােকসানের সম্মুখীন হলে মালিককেই এককভাগে তা বহন করতে হয়।

৬। একমালিকানা ব্যবসায়ের স্থায়িত্ব মালিকের ইচ্ছার উপর নির্ভরশীল । কারণ ব্যবসায় চালু রাখা বা বন্ধ করা মালিকের আগ্রহের উপর নির্ভর করে।

৭। একমালিকানা ব্যবসায় পণ্য উৎপাদন ও বিপণন মালিকের ইচ্ছার উপর নির্ভর করে । তিনি যে পণ্য উৎপাদন ও বিপণন করা ভালাে হবে মনে করেন সেটি করে থাকেন।

৮। একমালিকানা ব্যবসায় অনেক সময় ব্যবসায়ীকে বিনিয়ােগের ক্ষেত্রে বেগ পেতে হয়। কারণ তার ব্যবসায়ের সমস্ত বিনিয়ােগ তারনিজেকেই করতে হয়।

গ নং প্রশ্নের উত্তরঃ

এক মালিকানা ব্যবসায়ের গুরত্ব বর্তমান বৃহদায়তন উৎপাদন যুগে প্রাচীন ও ক্ষুদ্রায়তন প্রকৃতির এক মালিকানা ব্যবসায়ের গুরত্ব হ্রাস পাওয়ার কথা থাকলেও অদ্যাবধি এ ব্যবসায়ের গুরত্ব কমেনি । প্রতিটা সমাজে তথা বাংলাদেশে এটা এখনও সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্যবসায় সৎগঠন । নিমে এক মালিকানা ব্যবসায়ের গুরত্ব তুলে ধরা হলােঃ 

• ব্যাপক সেবা প্রদানঃ স্বল্প মূলধন নিয়ে অতি সহজে এ ব্যবসায় শহরের কেন্দ্রস্থল হতে শুরু করে গ্রাম – গঞ্জের সর্বত্র গড়ে উঠেছে । তাই প্রয়ােজনীয় পণ্য বা সেবা সামগ্রী সহজে ভােক্তা সাধারনের হাতে তুলে দিয়ে ব্যবসায় ব্যাপক জনগােষ্ঠীকে সেবা প্রদান করতে পারে।

• সহজ কর্মসংস্থানঃ সামান্য কিছু মূলধন হলে যে কেউ এক মালিকানা ব্যবসায়ের মাধ্যম নিজ কর্মসংস্থান করতে পারে। তাই বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে বেশি লােক এক মালিকানা ব্যবসায়ে জড়িত থেকে নিজের কর্মসংস্থান করছে।

• স্বল্প মুলধনঃ আমাদের দেশের অধিকাংশ জনগন গরিব বিধায় তাদের পক্ষে বৃহদায়তন ব্যবসায় গড়ে তােলা কঠিন। তাই অল্প পুঁজি দিয়ে সহজেই যে কেউ এ জাতীয় ব্যবসায় গঠন করতে পারে । সঞ্চয় ও বিনিয়ােগ বৃদ্ধি ও শহর ও গ্রামাঞ্চলের ব্যাপক জনগােষ্ঠী এরূপ ব্যবসায় গড়ে তােলার জন্য তাদের ক্ষুদ্র সঞ্চয়কে একত্রিত করে এ ধরনের ব্যবসায় গঠন করে। যা দেশের জন্য মুলধন গঠন এবং বিনিয়োগ ও উৎপাদন বৃদ্ধিতে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখে।

★সম্পদের সুষম বন্টনঃ ক্ষুদ্রায়তনের এক মালিকানা ব্যবসায় দেশের আনাচে কানাচে সর্বত্র ব্যাপকভাবে গড়ে উঠে । ফলে বৃহদায়তন ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে সম্পদ যেভাবে কতিপয় ব্যক্তির হাতে পুঞ্জীভূত হয় এক্ষেত্রে তার কোনই সম্ভাবনা থাকে না । এতে সম্পদের সুষম বণ্টন হয় । আয় ও সম্পদ বৃদ্ধি পায় ? ব্যাপক ভিত্তিতে এক মালিকানা ব্যবসায় গঠিত ও পরিচালিত হওয়ার ফলে তা ব্যাপক জনগােষ্ঠীর আয় রােজগারের ব্যবস্থা ও ব্যক্তিগত সম্পদ বৃদ্ধি করে । এতে জাতীয় আয় ও সম্পদ বৃদ্ধি প্রাপ্ত হয়।

• বৃহদায়তন প্রতিষ্ঠানকে সহায়তা দানঃ বড় বড় শিল্প প্রতিষ্ঠানের জন্য কাঁচামাল সরবরাহ এবং তাদের উৎপাদিত পণ্য ও সেবা ভােক্তাদের নিকট পৌছানাের গুর দায়িত্ব এ জাতীয় সংগঠন পালন করে। বৃহদায়তন প্রতিষ্ঠানের উৎপাদনের চাকাকে সচল রাখে এ জাতীয় ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান।

★সহজ পরিচালনাঃ এ জাতীয় ব্যবসায় পরিচালনা বৃহদাকার ব্যবসায়ের মত জটিল নয় এবং মালিক যেহেতু নিজেই ব্যবসায় পরিচালনা করে সেহেতু এর পরিচালনা ব্যয়ও তুলনামুলক কম হয।

• পরিবর্তনশীলঃ সময়ের সাথে সাথে মানুষের রচি ও চাহিদার দ্রুত পরিবর্তন হয়। কেবল একমালিকানা ব্যবসায়ই পরিবর্তনের সাথে খাপ খাওয়াতে পারে।

• স্বাধীন পেশাঃ যারা স্বাধীনচেতা ও স্বাধীন পেশা পছন্দ করে এবং অন্য কারও নিকট জবাবদিহি করতে চায় না , তাদের জন্য এক মালিকানা ব্যবসায় সংগঠন খুবই উপযােগী।

★দক্ষতা অর্জনঃ স্বল্প মূলধনের ব্যবসায়ের সাথে জড়িত হয়ে ব্যবসায়ী বৃহদায়তন ব্যবসায়ের দক্ষতা অর্জন করতে পারে। 

• জীবনযাত্রার মানােন্নয়ন ও এক মালিকানা ব্যবসায় একদিকে ব্যাপক জনগােষ্ঠির যেমনি আয় ও সম্পদ বৃদ্ধির সুযােগ সৃষ্টি করে অন্যদিকে সর্বত্র সহজে পণ্য ও সেবা সরবরাহ ও সেবা সরবরাহ নিশ্চিত করে ত করে জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে ভুমিকা রাখে।

ঘ নং প্রশ্নের উত্তর

একমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্রসমূহ নিন্মে বর্ণনা করা হলাে:

১. অনেকে আছেন যাদের হাতে পর্যাপ্ত অর্থ নেই অথচ ব্যবসায় শুরু করতে আগ্রহী । আত্মকর্মসংস্থানে উদ্যোগী এমন হাজার হাজার লােকের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় সবচেয়ে উপযুক্ত । যেমন- চায়ের দোকান , ছােট খাবারের দোকান , কুটির শিল্পের দোকান , মৃৎ শিল্পের দোকান। 

২। এমন কিছু ব্যবসায় আছে যেগুলাের জন্য বেশি অর্থের প্রয়ােজন পড়ে না । সে জাতীয় ব্যবসায়ের জন্য একমালিকানা ব্যবসায়ই সবচেয়ে বেশি উপযােগী বিবেচিত হয় । যেমন- পানের দোকান , সবজির দোকান  

৩। যে সকল ব্যবসায়ে ঝুঁকি একেবারেই কম সেগুলাের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত । কেননা কম আয়ের ব্যক্তিরা সাধারণত ঝুঁকি এড়িয়ে চলতে চান , ফলে তারা এমন ব্যবসায়ই বেশি পছন্দ করেন । যেমন- চালের দোকান , ঔষধের দোকান।

৪. কিছু কিছু ব্যবসায় আছে যেগুলাের প্রদত্ত পণ্য বা সেবার চাহিদা বিশেষ বিশেষ এলাকা বা নির্দিষ্ট শ্রেণির গ্রাহকদের নিকট সীমাবদ্ধ। সে সব পণ্য বা সেবার ক্ষেত্রে একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত । যেমন- স্কুলের সামনে বই – খাতার দোকান, কোনাে শিল্প কারখানার সামনে রেস্টুরেন্ট।

৫. পঁচনশীল জাতীয় পণ্য যেমন ফল – মূল , শাক – সবজি , মাছ – মাংস ইত্যাদির ব্যবসায় সাধারণত একমালিকানা ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকে।

৬. ডাক্তারি , প্রকৌশল ও আইন ব্যবসায়ের মতাে ক্ষুদ্র আকারের পেশাভিত্তিক ব্যবসায় এবং প্রত্যক্ষ সেবাধর্মী ব্যবসায় যেমন লন্ড্রি , সেলুন , বিউটি পার্লার ইত্যাদি সাধারণত একমালিকানার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকে।  

৭. যে সব ব্যবসায় প্রদত্ত পণ্য – দ্রব্য ও সেবার সাথে ব্যক্তির বা মালিকের নৈপুণ্য , শিল্পকর্ম ও সুনাম জড়িত থাকে সেগুলাের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত । যেমন – চিত্রকর্মের দোকান , ছবি তােলার দোকান ইত্যাদি।

ঙ নং প্রশ্নের উত্তরঃ

একমালিকানা ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তার কারণঃ 

একমালিকানা ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তার কারণ সমূহ নিয়ে আলােচনা করা হলােঃ 

১। সহজে ব্যবসায় গঠন করা যায়ঃ এ জাতীয় ব্যবসায়ের গঠন বেশ সহজ । আইনগত ঝামেলা না থাকায় যে কেউ ইচ্ছা করলে ও উদ্যোগ নিলে এ ব্যবসায় শুরু করতে পারেন । তাই একমালিকানা ব্যবসায় খুবই জনপ্রিয়। 

২। স্বল্প মূলধনঃ এক মালিকানার ভিত্তিতে ব্যবসায় স্বল্প মূলধন নিয়ে এ জাতীয় ব্যবসায় গঠন করা যায় । মালিক নিজেই এ মূলধন যােগান দেন । সাধারণত নিজস্ব সঞ্চয় ও প্রয়ােজনে বন্ধু – বান্ধব , আত্মীয় – স্বজন এবং ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসায় পরিচালনা করেন।

৩। স্বল্প জায়গাঃ একমালিকানা ব্যবসায় সাধারণত ছােটখাটো আকারের হয়ে থাকে । এর জন্য বেশি জায়গার প্রয়ােজন হয়না। এই ব্যবসায় সুবিধামতাে যেকোনাে স্থানে গড়ে তােলা যায়। 

৪। মতের অনৈক্য নেইঃ একমালিকানা ব্যবসায় যেকোনাে বিষয়ে মালিক নিজেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারেন । অংশীদার না থাকায় মতের অনৈক্য হয় না।

উপরােক্ত বিশ্লেষণ থেকে বােঝা যাচ্ছে যে , ব্যক্তিগত উদ্যোগ , স্বাধীনচেতা মনােভাব , স্বল্প পুঁজি ও স্বল্প শ্রম বিনিয়ােগ করে একমালিকানা ব্যবসায় যে কোনাে সময় যে কোনাে স্থানে শুরু করা যায় । এ ব্যবসায় আইনি জটিলতামুক্ত এবং এতে ঝুঁকিও কম । অন্যদিকে একমালিকানা ব্যবসায় ভােক্তাদের অত্যন্ত নিকটে থেকে তাদের পছন্দ ও রুচি অনুযায়ী পণ্য বা সেবা প্রদান করতে পারে । ফলে প্রাচীন ব্যবসায় সংগঠন হওয়া সত্ত্বেওমএকমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্র যেমন ব্যাপক , তেমনি সকলের নিকট এ ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তাও বেশি । বাংলাদেশের অর্থনৈতিক , সামাজিক , রাজনৈতিক , সাংস্কৃতিক অবস্থা বিবেচনায় একমালিকানা ব্যবসায় সবচেয়ে বেশি উপযােগী।

7th week HSC 2021 Business Organization & Management Assignment Assignment Question 2nd Paper

 HSC Assignment 2021 7th Week Answer – All Subjects

One comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *